মেহেদী ডিজাইন ছবি ২০২৩

এশিয়া মহাদেশে বেশ কয়েকটি দেশে মেহেদি ডিজাইন জনপ্রিয় আর এই জনপ্রিয়তার শীর্ষে যে ডিজাইন গুলি রয়েছে সেগুলো হলে পাকিস্তানে মেহেন্দির ডিজাইন।

বর্তমানে কম বেশি সবাই আমরা অনলাইনে বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী পাকিস্তানি জনপ্রিয় ডিজাইন খুজি। আজের পোস্টে আমরা মেয়েদের জন্য সেরার নতুন নতুন ঐতিহ্যবাহী পাকিস্তানি জনপ্রিয় ডিজাইনসহ আরও বিভিন্ন ডিজাইন নিয়ে হাজির হয়েছি।

আপনারা চাইলে খুব সহজে আপনার মোবাইল বা ল্যাপটপে সংরক্ষন করে নিতে পারেবেন। তাহলে চলুন ডিজাইন গুলি একে একে দেখে নেই।

নতুন বিয়ের মেহেন্দি ডিজাইন
নতুন বিয়ের মেহেন্দি ডিজাইন

মেহেদির ইতিহাস, প্রচলন ও ব্যবহার

মেহেদির নাম শুনলেই একটা উৎসবের গন্ধ আসে। মেহেদি ডিজাইন হাত আঁকা ছাড়া কোনো উৎসবই সম্পূর্ণ হয় না। তাই প্রাচীনকাল থেকেই যে কোনো ধর্মীয় উৎসব থেকে শুরু করে পালাপার্বণ সব কিছুতেই মেহেদি পাতার প্রাধান্য রয়েছে।

মেহেদি পাতার ইতিহাস

সভ্যতার ইতিহাস ধরা হয় ৫ হাজার বছরের। তবে মেহেদির ইতিহাস তার চেয়েও পুরনো। মেহেদির প্রথম ব্যবহার উত্তর আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের মরুভূমি অঞ্চলে নিওলিথিক (১০০০-৪০০০ খ্রিস্টপূর্ব) থেকে শুরু হয়।

প্রায় ৯০০০ বছর আগে, মরুভূমির বাসিন্দারা শরীরকে ঠান্ডা রাখতে মেহেদির পেস্ট দিয়ে তাদের পা ঢেকে রাখতেন। এটি যোদ্ধাদের মধ্যে বিশেষভাবে প্রচলিত ছিল।

তদুপরি, মেহেদি প্রায় ৩০০০ বছর ধরে দক্ষিণ চীনে প্রাচীন দেবী সংস্কৃতির সময় থেকে প্রেমের আচারের সাথে ব্যাপকভাবে জড়িত।

প্রাচীন মিশরের রানী নেফারতিতি (১৩৭০-১৩৩০ BC) এবং রানী ক্লিওপেট্রা (69-30 BC) নিয়মিত মেহেদি ব্যবহার করতেন। মিশরের পিরামিডে ফারাওদের মমিতে হেনা ব্যবহার করা হতো। মধ্যযুগের কিছু চিত্রকর্মে রাজা সলোমনকে মেহেদি পরা দেখা যায়।

ভারতের অজন্তা গুহাচিত্রেও শরীর সজ্জায় মেহেদির ব্যবহার দেখানো হয়েছে। ১২০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে উপমহাদেশে মেহেদির ব্যবহার শুরু হয় এবং মুঘল আমলে প্রাকৃতিক প্রসাধনী হিসাবে মেহেদির জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়ে।

মুঘল সম্রাট শাহজাহানের স্ত্রী মুমতাজকে মিশরের রাজা রাষ্ট্রীয় উপহার হিসেবে মেহেদি ও মেহেদির চারা দিয়েছিলেন বলে জানা গেছে।

মুসলিম মহিলারা ১৫০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মেহেদি ব্যবহার করে আসছেন। নবী মুসলিম মহিলাদের তাদের হাতে মেহেন্দি ডিজাইন করতে উত্সাহিত করেছিলেন। নবী (সাঃ) এর কন্যা ফাতিমা (রা) নিয়মিত হাতে মেহেন্দি ডিজাইন করতেন।

নবী নিজেই দাড়িতে মেহেদি ব্যবহার করতেন। ইসলামী খেলাফতের সময় থেকেই মুসলিম বিশ্বে মেহেদি ব্যবহার একটি ধর্মীয় রীতিতে পরিণত হয়।

মেহেন্দি বাহারি নাম

মেহেন্দি হিন্দি ও উর্দুতে মেহেন্দি, ইংরেজিতে হেনা, মধ্যপ্রাচ্যে হেনা এবং মধ্য এশিয়ায় ‘আল-খান্না’ নামে পরিচিত, যা আরবি শব্দ আল-হিন্না থেকে উদ্ভূত। এর গ্রিক নাম হেনা, আয়ুর্বেদিক নাম মাদায়ন্তিকা, বোটানিক্যাল নাম লসোনিয়া ইনেরমিস যা Lythreaceae পরিবারের অন্তর্গত।

মেহেদির বিভিন্ন ব্যবহার

যদিও মেহেন্দির অনুশীলন ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে শুরু হয়েছিল, মেহেন্দি দেওয়া এখন একটি সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক অনুশীলনে পরিণত হয়েছে।

ইসলাম, খ্রিস্টান, হিন্দু, বৌদ্ধসহ প্রায় সব ধর্মেই মেহেদির বিশুদ্ধতা, ঔষধি গুণাবলী এবং ব্যবহার উল্লেখ রয়েছে। যাইহোক, ভারতীয় উপমহাদেশ, বাংলাদেশ, ভারত এবং পাকিস্তানে মেহেদি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়।

আমাদের সমাজে মেহেদির ব্যবহার কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝা যায় বিয়ে, ঈদ-পূজা, বৈশাখ ও নববর্ষ উদযাপনের সময়।

বিশ্বের অনেক দেশে এটি উৎসবের একটি অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। প্রাক-বিবাহ, বিবাহ, গর্ভাবস্থার আট মাস, সন্তানের জন্মের ৪০ দিন, সন্তানের নামকরণ ইত্যাদির মতো পারিবারিক ও সামাজিক অনুষ্ঠান গুলিতে মেহেন্দি অনাদিকাল থেকেই বিভিন্ন সংস্কৃতিতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

‘মেহেন্দি সন্ধ্যা’ আফ্রিকার অনেক অঞ্চলে একটি জনপ্রিয় ঐতিহ্য। আরবি সংস্কৃতিতে নিরাময় এবং বিবাহ উদযাপনের জন্য, যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতেও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

চীনসহ দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশে আয়ুর্বেদিক, ইউনানি এবং বিভিন্ন ধরনের জৈব চিকিৎসায় মেহেন্দি ব্যবহার করা হয়।

আরও অনেক তথ্য জানবো তার আগে চলুন কিছু মেদি ডিজাইন দেখে নেই।

নতুন মেহেদি ডিজাইন লিষ্ট

সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-১
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-১
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-28
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-28
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-22
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-22
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-13
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-13
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-23
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-23
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-4
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-4
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-11
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-11
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-6
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-6
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-24
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-24
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-19
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-19
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-4
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-4
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-2
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-2
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-15
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-15
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-7
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-7
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-17
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-17
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-28
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-28
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-18
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-18
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-3
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-3
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-19
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-19
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-23
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-23
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-9
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-9
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-21
সিম্পল-মেহেদি-ডিজাইন-২০২৩-21

আরও পড়ুনঃ মেহেদি পাতার অবিশ্বাস্য উপকারিতা

মেহেন্দি ডিজাইন

মেহেন্দি ডিজাইন অবশ্যই যুগে যুগে পরিবর্তিত হয়েছে তবে সুন্দরভাবে কারুকাজ করা অলঙ্কৃত ডিজাইনের আবেদন কখনই হ্রাস পায়নি। শিশু থেকে বৃদ্ধ সবাই মেহেন্দি পরতে পারেন তবে ডিজাইনে বৈচিত্র্য থাকতে হবে।

ঐতিহাসিকভাবে, মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, ইহুদি, খ্রিস্টান এবং শিখ সহ বিভিন্ন ধর্মে মেহেদি বিশুদ্ধতা এবং আধ্যাত্মিকতার সাথে জড়িত।

বিশ্বের বিভিন্ন জাতি এবং বেশিরভাগ আদিবাসী সমাজে সুস্বাস্থ্য, উর্বরতা, প্রজ্ঞা, সুরক্ষা এবং আধ্যাত্মিকতার জ্ঞান হিসাবে প্রতিটি সংস্কৃতিতে বিভিন্ন নকশার আলাদা অর্থ রয়েছে।

আফ্রিকান নকশা

আফ্রিকান নকশা তাদের লোক, বন্য-দুঃসাহসী সংস্কৃতি প্রতিফলিত করে। তাদের বেশিরভাগ ডিজাইন গাঢ় জ্যামিতিক আকারে করা হয়। হাত-পা ছাড়াও মুখমণ্ডলসহ শরীরের যেকোনো অংশের নকশা করেন তারা।

চলুন তাহলে কিছু আফ্রিকান ডিজাইন দেখে নেই-

পায়ের-সহজ-মেহেদি-ডিজাইন-16
পায়ের-সহজ-মেহেদি-ডিজাইন-16
পায়ের-সহজ-মেহেদি-ডিজাইন-14
পায়ের-সহজ-মেহেদি-ডিজাইন-14
পায়ের-সহজ-মেহেদি-ডিজাইন-1
পায়ের-সহজ-মেহেদি-ডিজাইন-1
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-(48)
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-(48)
পায়ের-সহজ-মেহেদি-ডিজাইন-19
পায়ের-সহজ-মেহেদি-ডিজাইন-19
নতুন-ঈদ-কালেকশন-মেহেন্দি-ডিজাইন-6
নতুন-ঈদ-কালেকশন-মেহেন্দি-ডিজাইন-6
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-(44)
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-(44)

আরবি ডিজাইন

আরব বা মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলি ছোট এবং সহজ নকশা ব্যবহার করে। মুসলিম নারীরা পুরুষ নির্বিশেষে আরবি ক্যালিগ্রাফিক ডিজাইন পছন্দ করেন।

পাতার সঙ্গে ফুলের নকশা নারীদের প্রথম পছন্দ। সেসব দেশে ফুল হ্যান্ড বা বডি ফিলিং এবং বড় সাইজের ডিজাইন কম জনপ্রিয়। কিন্ত বিমূর্ত লাইন নকশা প্রচলিত আছে ডিাজাইন গুলি দখুন-

বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-8
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-8
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-5
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-5
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-17
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-17
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-4
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-4
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-6
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-6
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-9
বিয়ের-মেহেন্দি-ডিজাইন-9

আরও পড়ুনঃ-

ভারতীয় নকশা

ভারতীয় উপমহাদেশে, মেয়েরা সম্পূর্ণ, দীর্ঘ, বিস্তৃত জটিল নকশা পছন্দ করে। বিশেষ করে বিয়েতে মেয়ের বাহুর গোড়া থেকে নখ পর্যন্ত একটানা গল্পের মতো ডিজাইনের প্রবণতা রয়েছে।

বিভিন্ন রঙের মেহেদির সঙ্গে গ্লিটার ও পাথরের ব্যবহার লক্ষণীয়। বিভিন্ন রঙের শেড এবং বিন্দু ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়।

দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-12
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-12
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-9
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-9
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-1
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-1
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-12
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-12
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-6
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-6
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-11
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-11
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-14
দুর্গা-পুজোর-মেহেদি-ডিজাইন-14

মেহেদি ডিজাইন ভিডিও টিউটুরিয়াল

বাজারে প্রচলিত মেহেদি

আগে মেহেদির পাতা থেঁতো করে আঙুল ও তালুতে লাগানো হতো। মেহেদি মাখনোর ব্যবহার এখনও বেশ জনপ্রিয়। কিন্তু আজকাল, টিউব মেহেন্দির জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির সাথে সাথে, লোকেরা কেনা মেহেন্দিতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে।

বাজারে দুই ধরনের মেহেদি পাওয়া যায়। একটি রেডিমেড বা ইনস্ট্যান্ট মেহেন্দি, রঙটি ৫ থেকে ১০ মিনিটের মধ্যে আসে তবে এটি ধোয়ার সাথে সাথে রঙ বিবর্ণ হয়ে যায়।

আরেকটি হল প্রাকৃতিক বা জৈব মেহেদি। যেকোনো উৎসবে অর্গানিক মেহেদি ব্যবহার করা ত্বকের জন্য ভালো। কারণ, এই মেহেন্দি হাতে তৈরি, তাই এতে কোনো রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় না। এর রং গাঢ়, দীর্ঘস্থায়ী এবং ত্বকের জন্য ক্ষতিকর নয়।

প্রশ্ন উত্তর

মেহেদির উদ্দেশ্য কি

আমাদের সমাজে মেহেদির ব্যবহার কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝা যায় বিয়ে, ঈদ-পূজা, বৈশাখ ও নববর্ষ উদযাপনের সময়। বিশ্বের অনেক দেশে এটি উৎসবের একটি অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। প্রাক-বিবাহ, বিবাহ, গর্ভাবস্থার আট মাস, সন্তানের জন্মের ৪০ দিন, সন্তানের নামকরণ ইত্যাদির মতো পারিবারিক ও সামাজিক অনুষ্ঠানগুলিতে মেহেন্দি অনাদিকাল থেকেই বিভিন্ন সংস্কৃতিতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

ভারতে মেহেদীর প্রচলন কিভাবে শুরু হয়?

মেহেদির প্রথম ব্যবহার উত্তর আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের মরুভূমি অঞ্চলে নিওলিথিক (১০০০-৪০০০ খ্রিস্টপূর্ব) থেকে শুরু হয়। প্রায় ৯০০০ বছর আগে, মরুভূমির বাসিন্দারা শরীরকে ঠান্ডা রাখতে মেহেদির পেস্ট দিয়ে তাদের পা ঢেকে রাখতেন। এটি যোদ্ধাদের মধ্যে বিশেষভাবে প্রচলিত ছিল। এভাবে আস্তে আস্তে গোটাপৃথিবী ব্যবহার শুরু হয়।
তদুপরি, মেহেদি প্রায় ৩০০০ বছর ধরে দক্ষিণ চীনে প্রাচীন দেবী সংস্কৃতির সময় থেকে প্রেমের আচারের সাথে ব্যাপকভাবে জড়িত।

আমাদের কথা

বাজারে টিউব মেহেদির পরিবর্তে বাড়িতে মেহেদির পেস্ট তৈরি করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। অনেকেই ঘরে তৈরি মেহেদি হাতে লাগাতে চান না। কারণ এই মেহেন্দি সঠিক রং দেয় না, যা টিউব মেহেন্দি থেকে সম্ভব।

তবে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাজারজাত করা টিউব মেহেদি ত্বকের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। কারণ এতে রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়।

চিকিৎসকরা বলছেন, কালো রঙের মেহেদি সবুজ মেহেদির চেয়ে বেশি ক্ষতিকর। তাই ত্বকের সুরক্ষায় ঘরেই মেহেন্দি তৈরি করা নিরাপদ। ঘরেই মেহেনদি তৈরী করতে এই পোস্টটি পড়ুন- মেহেদি পাতা থেকে গুড়া মেহেদি তৈরীর নিয়ম

Leave a Comment